সাংস্কৃতিক বিনোদনের শক্তিশালী ও জনপ্রিয় মাধ্যম- চলচ্চিত্রের শুরু বায়োস্কোপ দিয়ে

সাংস্কৃতিক বিনোদনের শক্তিশালী, জনপ্রিয় কিন্তু ব্যয়বহুল মাধ্যম- চলচ্চিত্রের ইতিহাস দেশে তো নয়ই, ভারতবর্ষেও খুব দীর্ঘ নয়। গোটা বিশ্বেই এর ইতিহাস শতবর্ষের কিছু বেশি হবে। তাঁর মধ্যে বড় পর্দার সিনেমা নির্মাণ ও সিনেমা হলে প্রদর্শনের চর্চার বয়স আরও কম। গবেষকদের ভাষ্য, চলচ্চিত্রের শতবর্ষীয় ইতিহাসের শুরু বিবেচনা করা হয় বায়স্কোপ প্রদর্শন থেকে। তারও পরে পূর্ণ দৈর্ঘ্য সিনেমা বানানো হয়, তা’ও ছিল নির্বাক। পরে সবাক হয় সিনেমা, হয় সাদা-কালো থেকে রঙিন, বাড়ে চাকচিক্য। সিনেমার দ্রুত অগ্রযাত্রায় পুরো চলচ্চিত্র শিল্প বাস্তবে রঙিন এক দুনিয়ায় পরিণত হয়। তবে দেশে এর হাল করুণ। বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে দেখুন কামরান করিমের কয়েকটি প্রতিবেদন।

আরো দেখুন

অর্থনীতিতে বাড়ছে নারীর অবদান

এক সময় কোনো পেশায় কোনো নারীর বিশেষ অর্জন আলোচিত খবরে পরিণত হতো। নারীর ক্রমবর্ধমান অংশগ্রহণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *